এবার রাজশাহীতে নুরের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক:  ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের নামে রাজশাহীতে মামলা করেছেন তৌরিদ আল মাসুদ রণি নামের যুবলীগের এক নেতা। আজ বুধবার (২১ এপ্রিল) নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি করেন তিনি। মামলায় নুরের বিরুদ্ধে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের হেয় করার অভিযোগ আনা হয়েছে।

আওয়ামী লীগের কেউ প্রকৃত মুসলমান না- ফেসবুক লাইভে এসে এমন মন্তব্য করার অভিযোগে নুরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে এই মামলা হয়েছে।এদিকে পুলিশ মামলাটি গ্রহণ করে তদন্তের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ বিষয়ে বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবরাণ চন্দ্র বর্মণ বলেন, বাদীর অভিযোগটি মামলা হিসেবে গ্রহণ করে তদন্ত করতে একজন উপ-পরিদর্শককে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

এর আগে ফেসবুক লাইভে এসে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত ও উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামে মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) রাতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে নগরীর কোতোয়ালি থানায় মামলাটি দায়ের করেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আজিজ মিসির।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন বলেন, ‘ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরের বিরুদ্ধে একটি এজাহার দেওয়া হয়েছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫ (২), ২৮(২), ২৯(১), ৩১(২) ধারায় এজহারটি গ্রহণ করা হয়েছে। অভিযোগটি তদন্ত করে দেখা হবে।’

এজাহারে বাদী নিজেকে চট্টগ্রাম মহানগর সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির অর্থ উপপরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক হিসেবে পরিচয় দিয়ে উল্লেখ করেন, নুর তার ব্যক্তিগত আইডি থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক লাইভে এসে বাংলাদেশের অসংখ্য ধর্মপ্রাণ নেতাকর্মীদের ধর্মীয় মূল্যবোধ বা অনুভূতিতে উসকানি প্রদান, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোসহ মুসলমান নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মানহানিকর মন্তব্য প্রকাশ, আক্রমণাত্মক ও মিথ্যা তথ্য প্রদান করেছেন।

এর আগে গত ১৪ এপ্রিল বিকেলে ফেইসবুক লাইভে এসে নুরুল হক নুর বলেন, ‘কোনো মুসলমান আওয়ামী লীগ করতে পারে না। যারা এই আওয়ামী লীগ করে তারা চাঁদাবাজ, ধান্ধাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী, চিটার-বাটপার এই ধরনের মুসলমান। শুক্রবার একদিন নামাজ পড়তে যাবে, আর পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের কোন খবর নাই।’

এমন বক্তব্যের পর নুরের বিরুদ্ধে ঢাকা ও সিলেটে এরই মধ্যে মামলা হয়েছে। মামলার হওয়ার পর নুরুল হক নুর তার আরেকটি ফেসবুক পেজ থেকে লাইভে এসে নিজের ভুল স্বীকার করেন এবং ক্ষমা চেয়ে ওই ভিডিও ফেসবুক থেকে অপসারণের কথাও জানান।

আপনার মতামত লিখুন :