কাশিমপুরে কয়েদি পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় সাতজনের বিরুদ্ধে মামলা

খায়রুল আলম রফিক

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদির পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ সিনিয়র কারা তত্ত¡াবধায়ক জাহানারা বেগমসহ সাতজনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়েছে। এছাড়া জাহানারা বেগমকে তার পদ থেকে পদাবনতি করে জামালপুর জেলা কারাগারে বদলি করা হয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা শরীফ মাহমুদ অপু দৈনিক আমাদের কন্ঠকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। গত আগস্টের শুরুর দিকে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ থেকে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদি আবু বকর সিদ্দিক পালিয়ে যায়। তার বাড়ি সাতক্ষীরার শ্যামনগর থানার আবাদ চন্ডীপুর এলাকায়। গত ২০১১ সালের ১৪ জুন হতে এ কারাগারে বন্দি ছিলেন। শ্যামনগর থানার একটি হত্যা মামলায় ফাঁসির দন্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে তাকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে কাশিমপুর কারাগারে স্থানান্তর করা হয়।

২০০২ সালের ১৭ মার্চ এর একটি হত্যা মামলায় (নং-১২) আদালত আবু বকরকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ডাদেশ কার্যকরের আদেশ দেন ২০০৬ সালের ৬ আগস্ট। পরবর্তীতে আসামির আপিলের প্রেক্ষিতে আদালত ২০১২ সালের ২৭ জুলাই ওই সাজা সংশোধন করে তাকে যাবজ্জীবন (৩০ বছর) সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন। ঘটনার দিন সন্ধ্যায় লকআপের সময় বন্দিদের গণনাকালে তাকে পাওয়া যায়নি। এরপর হতে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বন্দি পালানোর ঘটনায় সিনিয়র কারা তত্ত¡াবধায়ক জাহানারা বেগমকে পদাবনতি করা হয়েছে। আগে তার পদবি ছিল সিনিয়র কারা তত্ত¡াবধায়ক (ভারপ্রাপ্ত) । এখন তাকে এক পদ নিচে নামিয়ে কারা তত্ত¡াবধায়ক করে জামালপুর জেলা কারাগারে বদলি করা হয়েছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলাও হয়েছে। ওই কারাগারের আরও ছয়জনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা দিয়ে তাদের দেশের বিভিন্ন জেলায় বদলি করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :