তালাক নাদিয়েই পরপুরুষের সাথে স্বামী পরিচয়ে রাত্রিযাপন

রফিকুল ইসলাম খান,খুলনা পাইকগাছা

 

নিজ স্বামীকে তালাক না দিয়েই অন্যের স্বামীর সাথে ঘর করছেন জনৈকা গৃহবধূ (৩৫)। প্রচার করছেন, তারা নাকি ধর্মমতে বিয়ে করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে পাইকগাছার কপিলমুনির কাশিমনগরে। এলাকাবাসীর অভিযোগে প্রকাশ, পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি ইউনিয়নের কাশিমনগর গ্রামের অধির সরদারের ছেলে সাধন সরদারের জনৈকা স্ত্রী (৩৫) নিজ স্বামীকে শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন চালিয়ে বাড়ির বাইরে ঘের কর্মচারীর কাজ করাতে বাধ্য করে। এরপর পার্শ^বর্তী তালা উপজেলার গঙ্গারামপুর গ্রামের মৃত নিতাই সরদারের ছেলে প্রভাত সরদারের সাথে অবৈধ পরকীয়ায় লিপ্ত হয়। প্রথমত বিভিন্ন সময় নানা অজুহাতে তারা বাড়ি থেকে বাইরে গিয়ে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হত। পরে সম্পর্ক আরো গাঢ় হওয়ায় একসাথে যৌথ মালিকানায় পানের বরজ করে বলে প্রচার দিয়ে উভয়ই উভয়ের বাড়িতে যাতায়াত ও রাত্রি যাপন শুরু করে। স¤প্রতি ঐ গৃহবধূ তার স্বামীর বাড়ি থেকে গবাদি পশু থেকে শুরু করে সমস্ত মালামাল বহন করে প্রভাতের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ায় এলাকাবাসীর সন্দেহ মারাতœক আকার ধারণ করে। পারিবারিক সূত্র জানায়, এক মাত্র সন্তান অয়নকে স্বামীর বাড়িতে তার দাদুর কাছে রেখে সরাসরি তিনি প্রভাতের বাড়িতে রাত্রি যাপন শুরু করেছেন। এলাকাবাসীর প্রশ্নবানের মুখে প্রভাত ও ঐ গৃহবধূ বলছে, তারা ধর্মমতে বিয়ে করেছেন। পরে রেজিস্ট্রি করিয়ে নেবেন।
এদিকে বিয়ে করেছেন বলে প্রচার দিলেও এখন পর্যন্ত কোন কাগজ-পত্র তারা দেখাতে পারেননি। সূত্র জানায়, প্রভাত নিজেও বিবাহিত। তবে দীর্ঘ দিনেও তার স্ত্রীর কোন সন্তান না হওয়ার সুযোগে স্ত্রীকে ভুল বুঝিয়ে পরনারীকে বিয়ে করার বিষয়টি রাজী করায়। তারপরও ঐ গৃহবধূ দিনের বেলায় প্রভাতের পরামর্শে তার স্বামীর বাড়িতে গিয়ে বৃদ্ধ শ্বশুর অধিরকে তার সমুদয় সম্পত্তি ছেলে অয়নের নামে লিখে দিতে নানাবিধ হুমকি-ধামকি দিচ্ছে। সমাজকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে একই সাথে দুথস্বামীর বাড়ীতে যাতায়াত প্রেমিকের সাথে রাত্রি যাপনের বিষয়টি ভাল চোখে দেখছেননা কেউ। তারা এব্যাপারে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য স্থানীয় প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
এদিকে বিবাহবহির্ভূত পরস্ত্রীকে নিজ বাড়িতে রেখে রাত্রিযাপনের বিষয়ে জানতে চাইলে ঘটনার নায়ক প্রভাত সরদার জানান,ইতোমধ্যে তারা ধর্মমতে বিয়ে করেছেন,রেজিস্ট্রিও হয়েছে। তবে কোন কাগজ-পত্রাদি দেখাতে পারেননি। ঘটনার নায়িকা গৃহবধূকে জানতে চাইলে তিনি বলেন,তার স্বামী সাধন সরদার বাড়িতে থাকেননা। একসাথে পান বরজ করার সুবাদে প্রভাতের সাথে পরিচয় ও ছেলের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তিনি প্রভাতকে ধর্মমতে বিয়ে করেছেন। তবে প্রথম স্বামীর সাথে বিচ্ছেদ হয়েছে কিনাসহ একই সময়ে দুথস্বামীর বাড়ীতে রাত্রি যাপনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ২নং কাশিমনগর ওয়ার্ড সদস্য শেখ রবিউল ইসলামকে তারা কাগজ-পত্র দেখিয়েছেন। এব্যাপারে তালার খলিলনগর ইউপিথর সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের সদস্য প্রকাশ দালালের নিকট জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন,তিনি তাদের আইনগতভাবে সম্পর্ক স্থাপনপূর্বক বসবাসের কথা বলেছেন। সর্বশেষ আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে ভোট প্রার্থীদের (জনপ্রতিনিধি) উষ্কাণি ও রসাত্মক আচরণে অনুপ্রাণিত হয়ে নিষিদ্ধ প্রেমের বলি হতে চলেছে দুথটি পরিবার। গৃহবধূর স্বামী-সন্তান ও বৃদ্ধ শ্বশুর অন্যদিকে প্রভাতের স্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট পরিবারগুলি এগিয়ে যাচ্ছে এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে। এব্যাপারে তারা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

 

আপনার মতামত লিখুন :