নারায়ণগঞ্জে লঞ্চ ডুবে ৩৪ জনের প্রাণহানির ঘটনায় অজ্ঞাতনামা আসামী করে থানায় মামলা

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

 

নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীতে বালুবাহি বল্কহেডের ধাক্কায় সাবিদ আল হাসান নামের মুন্সিগঞ্জগামী একটি লঞ্চ ডুবে ৩৪ যাত্রী নিহতের ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। ৬ এপ্রিল মঙ্গলবার রাতে বিআইডব্লিউটিএ এর নৌ নিরাপত্তা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক বাবু লাল বদ্য বাদী হয়ে বন্দর থানায় অজ্ঞাত আসামী করে এ হত্যা মামলা দায়ের করেন।
নারায়ণগঞ্জ নৌ নিরাপত্তা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক ববু লাল বদ্য জানান, নৌ নিরাপত্তা আইন ভঙ্গ করে বেপরোয়া গতিতে ও প্রতিযোগীতা মুলকভাবে জাহাজ চালিয়ে লঞ্চ ডুবিয়ে ৩৪ জনের প্রাণহানী ও জানমালের ক্ষতির অভিযোগে বন্দর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছি। আশা করছি লঞ্চ ডুবির ঘটনায় জড়িতদের পুলিশ দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনবে।
বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ দীপক চন্দ্র সাহা এর সত্যতা স্বীকার করে জানান, গত রবিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ থেকে মুন্সিগঞ্জের উদ্দেশ্যে অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে ছেড়ে যাওয়া এম এল সাবিত আল হাসান লঞ্চটিকে একটি কার্গো জাহাজ বেপরোয়া গতিতে পেছনের দিক থেকে ধাক্কা দিলে লঞ্চটি ডুবে ৩৪ জনের প্রাণহানি ঘটে। এ ঘটনায় জানমালের ক্ষতি ও বেপরোয়াভাবে জাহাজ চালিয়ে ধূর্ঘটনা ঘটানের অভিযোগে বিআইডব্লিউটিএ একটি মামলা দায়ের করেছে। এ মামলায় অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামী করা হয়েছে।
এর আগে গত ৪ এপ্রিল সন্ধ্যায় এম বি সাবিদ আল হাসান নামের লঞ্চটি অর্ধ শতাধিক যাত্রি নিয়ে নারায়ণগঞ্জ মুন্সীগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওনা হলে মদনগঞ্জ নির্মানাধীন শীতলক্ষ্যা তৃতীয় সেতুর পাশে কয়লার ঘাট পে্যঁছলে এসকে-৩ নামের একটি বালু বাহি বাল্কহেড ধাক্কা দিলে লঞ্চ টি ডুবে যায়। গত রবিবার রাত পর্যন্ত ৫ জন নারীর লাশ উদ্ধার করা হয় এবং জীবিত উদ্ধার করা হয় ২০ জনকে। বিআইডব্লিউটিএ এর ১৮ ঘন্টা ধরে উদ্ধার অভিযান শেষে ডুবন্ত লঞ্চটি উদ্ধার উদ্ধার শেষ করে এবং এ ঘটনায় মোট ৩৪ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :