পাথরঘাটায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কটুক্তি করায় ফুঁসে ওঠছে মুক্তিযোদ্ধা সমাজ

মোঃ জাফর ইকবাল,পাথরঘাটা, বরগুনা

বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার ১নং রায়হানপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড কড়ইতলা গ্রামের বাসীন্দা মৃতঃ আব্দুছ ছোমেদ এর ছেলে দেলয়ার হোসেন (নবাব মিয়া ৭০) প্রতিবেশী বীর মুক্তিযোদ্ধা আলতাফ হোসেন এর মেয়ে মোসাঃ নাজমার সাথে গত ৭ নভেম্বর গাছ নিয়ে তকের সৃষ্টি হলে নাজমা দেলয়ার হোসেন নবাবকে বলেন চাচা আমি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান তাই আমাকে বাজে কথা বলবেন না। এসময়ে দেলয়ার হোসেন উত্তেজিত হয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের মা-বাপ তুলে অশ্লিল ভাষায় গালা-গালি করেন। পরে নাজমা বেগম পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করলে, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবরিনা সুলতানা পাথরঘাটা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড এর ডেপুটি কমান্ডার বরগুনা জেলা পরিষদের সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ খালেককে প্রধানকরে ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। পরে ওই কমিটি ১৪ নভেম্বর শনিবার সরেজমিনে তদন্ত করতে গেলে উপস্থিত সংবাদ কর্মিসহ শতাধিক লোকের সামনে ঘটনার প্রতক্ষদর্শি দেলয়ার হোসেন নবাবের বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগেরর সত্যতা স্বীকার করে বলেন দেলয়ার মুক্তিযোদ্ধার মা-বাপকে তুলে গালি দেওয়াসহ সে বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন বাজে কথা বলছে। তারা বলেন দেলয়ার হোনেন মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্দেশ্য করে বলেছেন এই সরকার কদিন আর ক্ষমতায় থাকবে। সরকার পতনের পরে তোদের মুক্তিযোদ্ধাদের একটা একাট ধরে পুতে ফেলব। এসময়ে অভিযুক্ত দেলয়ার হোসেন বলেন আমি মুক্তিযোদ্ধার মাকে তুলে গালি দিয়েছি,তাই আমাকে ক্ষমা করেন। উপস্থিত অগনিত লোক দেলয়ার হোসেনের বিচার দাবী করে বলেন দেলয়ার হোসেন একজন রাজাকার। সে ১৯৭১ সনে পার্শবতি হিন্দু গ্রামে মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিকামী অনেক মানুষের মালামাল লুটসহ অনেক মানুষের ওপর অত্যাচার করেছে। তারা বলেন দেলয়ার হোসেন তার ভাগ্নেদের নিয়ে একটি বাহিনি তৈরি করেছেন। ওই বাহিনি বর্তমানে সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করে আসছে। এব্যাপারে পাথরঘাটা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড এর ডেপুটি কমান্ডার ও বরগুনা জেলা পরিষদের সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ খালেক এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন তদন্তে বীর মুক্তিযোদ্ধার মেয়ে নাজমা বেগম এর অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে।

আপনার মতামত লিখুন :