পেঁয়াজ চাষ বাড়াতে তৎপর কৃষি বিভাগ, রাজশাহীতে ১৭ হাজার হেক্টর জমিতে লক্ষ্যমাত্রা

মোঃ রমজান আলী, রাজশাহী

 

গত কয়েক বছর ধরে সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাসে দেশে পেঁয়াজের সংকট দেখা দিচ্ছে। এই সংকট মোকাবিলায় পেঁয়াজ চাষে গুরুত্ব দিচ্ছে কৃষি বিভাগ। পেঁয়াজ উৎপাদন বাড়াতে সরকার বিশেষ পরিকল্পনা নিয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় রাজশাহীতেও পেঁয়াজ উৎপাদন বাড়াতে ইতোমধ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আগামী মৌসুমে ১৭ হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর। বর্তমানে পেঁয়াজ চাষে উদ্বুদ্ধ করতে দফায় দফায় কৃষকদের সঙ্গে উঠান বৈঠক, সমাবেশ ও প্রশিক্ষণের আয়োজন করছে কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর। কৃষকরা যাতে পেঁয়াজের ভালো ফলন পান সেই লক্ষ্যে সার, সেচসহ বিভিন্ন আনুষঙ্গিক বিষয়ে সুস্পষ্ট ধারণা দেওয়া হচ্ছে। এদিকে কৃষকরা বলছেন, কৃষি বিভাগ থেকে পেঁয়াজ চাষ প্রশিক্ষণ ও ব্যবস্থাপনায় উৎপাদিত পেঁয়াজ যদি সরকার সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে কেনে তাহলে পেঁয়াজ চাষ আরও বাড়বে। জেলা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানাগেছে, রাজশাহীতে তাহিরপুরি জাতের পেঁয়াজ চাষ সবচেয়ে বেশি হয়। চলতি রবি মৌসুমে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ১৬ হাজার ৭৯১ হেক্টর জমিতে তাহিরপুরি জাতের পেঁয়াজ চাষ হয়েছে। হেক্টরপ্রতি গড় ফলন ছিল ১৬ দশমিক ৭৩ টন। মোট উৎপাদন ছিল ২ লাখ ৮২ হাজার ৭৯৯ মেট্রিক টন। সেই হিসেবে আগামী মৌসুমে ১৭ হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হলে উৎপাদিত পেঁয়াজ জেলার চাহিদা মিটিয়ে অন্য জেলায় বিক্রি করতে পারবেন কৃষকেরা। জেলা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামছুল হক বলেন, আগামী মৌসুমে জেলায় পেঁয়াজ উৎপাদন বাড়ানোর জন্য ইতোমধ্যে পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে পেঁয়াজ লাগানোর জন্য উঠান বৈঠক ও বিভিন্ন সমাবেশের মাধ্যমে তাদের উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে।

 

 

 

আপনার মতামত লিখুন :