প্রয়োজনে খালেদাকে বিদেশ যেতে দেবে সরকার, বিশ্বাস খোকনের

স্টাফ রিপোর্টার

 

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর জন্যে সরকারের কাছে তার পরিবারের পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়েছিল। অসুস্থ বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তির মেয়াদ ছয় মাস বাড়ানোয় সরকারকে ধন্যবাদ।

তিনি বলেন, আমার দৃঢ় বিশ্বাস, উনার (খালেদা জিয়া) যে শারীরিক অবস্থা, তাতে যদি বিদেশে চিকিৎসার প্রয়োজন হয়, খালেদা জিয়া ও তার চিকিৎসক যদি মনে করেন সরকার সেটাতেও অনুমতি দেবে।

বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় এমন তথ্য জানান তিনি। ভিডিও বার্তাটি পাঠান অপর আইনজীবী ব্যারিস্টার এ কে এম এহসানুর রহমান।

এর আগে গত ২৯ আগস্ট রাতে রাজধানীর গুলশানে খালেদা জিয়ার বাসভবন ‘ফিরোজা’য় গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেন ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। সাক্ষাতের পর বাড়ির গেটে সাংবাদিকদের কাছে খোকন বলেন, ‘ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তিনি অসুস্থ, জরুরিভাবে চিকিৎসা প্রয়োজন।’

গত ২৫ আগস্ট খালেদা জিয়ার স্থায়ী জামিন চেয়ে ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তার সেই আবেদন আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। এরপর বৃহস্পতিবার আইন মন্ত্রণালয় থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ আরও ৬ মাস বাড়ানোর সিদ্ধান্ত আসে। বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তবে তাকে আগের মতোই বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হয়নি।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত খালেদা জিয়ার সাজা গত ২৪ মার্চ স্থগিত করে সরকার। পরের দিন ২৫ মার্চ মুক্তি পেয়ে গুলশানের বাসায় ওঠেন খালেদা জিয়া। মুক্তির শর্ত অনুযায়ী তিনি চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে পারছেন না। ৬ মাসের মধ্যে পাঁচ মাস অতিবাহিত হলেও চিকিৎসা শুরু হয়নি খালেদা জিয়ার। যেটুকু হচ্ছে বাসায় নিজস্ব চিকিৎসকের পরামর্শে।

তার চিকিৎসকরা বলছেন, খালেদা জিয়ার হাঁটুর চিকিৎসা এর আগে লন্ডনে করা হয়েছিল। হাঁটুর সেই জয়েন্টে ব্যাথার কারণে তিনি হাঁটাচলা করতে পারেন না। এ কারণে তাকে পুনরায় বিদেশে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা দেয়া প্রয়োজন।

আপনার মতামত লিখুন :