ফেনীর সেই ছাত্রের দাফন সম্পন্ন

ফেনী প্রতিনিধি:

হাজারও মানুষের অশ্রুসিক্ত বিদায়ে পারিবারিক কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন ফেনীতে নৃশংসভাবে খুন হওয়া বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র মো. ইউনুস বাবু। শেষ বিদায় জানাতে সর্বস্তরের হাজারও মুসল্লি অংশ নেন তার জানাজায়। সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সোনাগাজীর বগাদানা ইউনিয়নের ওসমানিয়া আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে তার জানাজা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। জানাজায় নেয়ার আগে তার মায়ের বিলাপে আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে ওঠে।

পারিবারিক সূত্র জানায়, সোনাগাজীর বগাদানা ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামের সওদাগরবাড়ির আবু ইউসুফের বড় ছেলে মো. ইউনুস বাবু। দুই ভাই এক বোনের মধ্যে বাবু ছিল সবার বড়। তিনি ফেনীর আইসিএসটি থেকে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করে স্কলারশিপ নিয়ে দেড় বছর ধরে চীনের বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ছিলেন। করোনাকালে দেশে এসে বাবা-মায়ের সঙ্গে ফেনী শহরের শাহীন একাডেমি রোডের একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন।

গত ৮ অক্টোবর রাত ৯টার দিকে তার বন্ধু ইউনুস নবী রাকিব ও শাহরিয়ার তাকে মোটরসাইকেলে বাসা থেকে ডেকে নেন। শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে ফেনী শহরের পাঠানবাড়ি এলাকার সফিকুর রহমান সড়কের তাসফিয়া ভবনের সেপটিক ট্যাংক থেকে গুরুতর আহতাবস্থায় বাবুর বন্ধু শাহরিয়াকে উদ্ধার করা হয়। তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। একই ভবনের সেপটিক ট্যাংক থেকে ইঞ্জি. বাবুর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

গত ১১ অক্টোবর তার মা বাদী হয়ে ফেনী পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের কদলগাজী তেমুহানীর রেনু হাজারীবাড়ির নূর আলমের ছেলে ইউনুস নবী রাকিব ও তাসফিয়া ভবনের কেয়ারটেকার দাগনভূঞা উপজেলার দক্ষিণ জায়লস্কর গ্রামের ফকির হাফেজ বাড়ির মো. সেলিমের ছেলে মোজাম্মেল হক শাহীনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা ৪-৫ জনকে আসামি করে ফেনী মডেল থানায় মামলা করেন। সোমবার দুপুরে ওই মামলায় তাসফিয়া ভবনের কেয়ারটেকার মোজাম্মেল হক শাহীনের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

আপনার মতামত লিখুন :