বঙ্গবন্ধু আদর্শ ঐক্য পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা সভাপতি নুরুজ্জামান পলাশ ধর্ষক মামলায় আটক

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

অবশেষে সংবাদ প্রকাশের জেরে বঙ্গবন্ধু আদর্শ ঐক্য পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা সভাপতি নুরুজ্জামান পলাশকে আটক করেছে মিরপুর থানা পুলিশ। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা নং ১২তাং১৭/১০/২০২০ ইং শনিবার দৈনিক হাওয়া পত্রিকায় ’ বঙ্গবন্ধু আদর্শ ঐক্য পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা সভাপতি পলাশের বিরুদ্ধে ধর্ষন ও গর্ভপাতের অভিযোগ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। বিষয়টি মিরপুর থানার নজরে এলে তদন্ত করে এর সত্যতা নিশ্চিত হওয়ার পরে তাকে আটক করা হয়। জানাগেছে, কুর্শা ইউনিয়নের মাঝিরহাট গ্রামের মৃত সোহরাব মাস্টারের ছেলে বঙ্গবন্ধু আদর্শ ঐক্য পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা সভাপতি নুরুজ্জামান পলাশ মোল্লা(৩৫) একই গ্রামের মৃত আঃ মালেকের মেয়ে তৃষার (ছদ্মনাম) সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। প্রেমের সর্ম্পকের শুরু থেকেই ভুক্তভুগী মেয়েটির সাথে শারিরীর সম্পর্ক গড়ে তোলে অভিযুক্ত পলাশ। প্রায় ৭মাস ধরে এভাবে শারিরীক সম্পর্ক হওয়াতে একপর্যায়ে মেয়েটি গর্ভবতী হয়ে যায়। তবে এমন ঘটনা ঘটার পরও একাধিকবার মেয়েটির নিজ বাড়িতে গিয়ে শারিরীক সম্পর্ক করে সোহরাব মাস্টারের ছেলে নুরুজ্জামান পলাশ। তবে মেয়েটির গর্ভবতীর দিন যখন দিন দিন বাড়তে থাকে ঠিক তখনই মেয়েটি লোকলজ্জার ভয়ে বাচ্চাটিকে বৃহঃবার দুপুর ১২টার সময় নিজ বাসাতেই গর্ভপাত করান। পরবর্তীতে সেই নবজাতক বাচ্চাটিকে নিজ বাসার আঙ্গিনাতেই মাটিচাপা দিয়ে রাখে।

তবে নাম বলতে অনইচ্ছুক অনেকেই বলছেন, বাচ্চাটি গর্ভপাত করানোর পর বাচ্চাটি বেচে ছিলো, পরবর্তীতে নুরুজ্জামান পলাশ জোরপূর্বক মেয়েটিয়ে দিয়ে ওই নবজাতক বাচ্চাটিকে ঔষুধ খাওয়াইয়ে মেরে ফেলা হয় এবং পরবর্তীতে বাড়ির পাশেই এক ঝোপে মাটিচাপা দেওয়া হয়। এবিষয়ে ভুক্তভোগী তৃষার (ছদ্মনাম) সাথে কথা হলে তিনি জানান, আমার সাথে পলাশের ৭ মাস ধরে প্রেমের সম্পর্ক। আর এই প্রেমের সম্পর্ক থেকেই আস্তে আস্তে শারিরীক সম্পর্কতে জড়িয়ে পড়ি আমরা। পলাশ আমার সাথে বিয়ের প্রলোভন একাধিকবার শারিরীক সম্পর্ক করেছে। এর মধ্যেই আমি গর্ভবতী হয়ে যাই। এখন পলাশের সাথে আমার কোন যোগাযোগ হচ্ছেনা, আমার কোন খোজখবর রাখেনা। আর তাই আমি বাধ্য হয়ে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার সময় নিজ বাড়িতেই গর্ভপাত কড়িয়ে নিজ বাড়ির আঙ্গিনাতে মাটিচাপা দিয়ে রাখি। তবে পলাশের ভাই আমাকে নানা মহলে চরিত্রহীনা বানানোর চেষ্টা করছে। মেয়েটির মা জানান, আমার মেয়ের সাথে পলাশের শারিরীক সম্পর্ক গড়ে ওঠার কারনেই আজ আমাদের এমন দশা। আমার স্বামী নেই, মা ও মেয়ে এই বাড়িতে থাকি।

অভিযুক্ত পলাশের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তা সম্ভব হয়নি। তবে সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে বেশ কয়েকজন সহ পলাশের ভাই হাজির হয় মেয়েটির বাড়িতে। সেসময় তিনি জানান, এই মেয়ে একাধিক মানুষের সাথে অবৈধ সম্পর্ক রাখায় এমন দশা। আমার ভাই এর সাথে জড়িত না। তবে এলাকাবাসী বলছে, মেয়েটির পরিবার অনেক গরীব, আর তাই বাড়ি করতে পলাশ কিছুটা হেল্প করে। আর এই সুযোগ নিয়েই আস্তে আস্তে প্রেমের সম্পর্ক গড়িয়ে এমন শারিরীক সম্পর্ক। অভিযুক্ত নুরুজ্জামান পলাশ কুর্শা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা হান্নান মোল্লার ভাতিজা ও বঙ্গবন্ধু আদর্শ ঐক্য পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা সভাপতি হওয়ায় এবং তার ভাই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি হওয়াতে পরবিারটি ভয়ের মুখে পড়ে আছে। নির্যাতনের শিকার হয়েও তারা মুখ খুলতে পারছেনা। এবিষয়ে মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, ঘটনাটি শোনার সাথে সাথেই আমরা থানা থেকে অফিসার পাঠিয়েছিলাম। সেইসাথে পরিবারটিকে লিখিত অভিযোগ দেবার অনুরোধও করেছিলাম। লিখিত অভিযোগ পেয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে যাহার মামলা নং ১২তাং১৭/১০/২০২০ ইং।

 

আপনার মতামত লিখুন :