বুধোর বটতলা হতে রামকৃষ্ণপুর বাজার রাস্তাটির বেহাল দশা

যশোর প্রতিনিধি

 যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার রায়পুর ইউনিয়ানের ভাতুড়িয়া বুধোর বটতলা হতে রামকৃষ্ণপুর বাজারে যাওয়ার একমাত্র রাস্তাটি কাঁচা। এই কাঁচা দিয়ে আশে পাশের গ্রামের প্রায় সাড়ে ৪ হাজার মানুষের চলাচল। একটু বৃষ্টি হলে পথচারিদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগের শিকার হতে হয়। যুগের পর যুগ রাস্তাটি পাকা করার দাবি স্থানীয় বাসিন্দাদের। রাস্তাটির বাঘারপাড়া খাজুরা সড়ক সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে ভাতুড়িয়া গ্রামের মধ্যে দিয়ে রামকৃষ্ণপুর বাজারে শেষ হয়েছে। শেষ প্রান্তে আধা পাকা ইটের রাস্তা রয়েছে এবং শুরুর দিকে বাঘারপাড়া-খাজুরা সড়কের সাথে। রাস্তাটির দৈর্ঘ্য মাত্র দেড় কিলোমিটার। এলাকার কয়েকটি গ্রামের শিক্ষার্থীরা এই রাস্তাদিয়ে স্কুলে যায়। রামকৃষ্ণ পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আজমেহেরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আজমেহেরপুর মহিলা দাখিল মাদ্রাসা, সিলুমপুর উচ্চ বিদ্যালয়, রায়পুর কলেজিয়েট স্কুল ও কলেজে এর শিক্ষার্থীদের এক মাত্র পথ এটি। অপরদিকে, যে সব শিক্ষার্থীরা বাঘারপাড়া মহিলা কলেজ, বাঘারপাড়া ডিগ্রী কলেজ, বাঘারপাড়া ফাজিল মাদ্রসা,শেখের বাতান দাখিল মাদ্রসার এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করে।
এছাড়া, উপজেলার সাথে যোগাযোগ রক্ষা ও যাতায়াতের জন্য এই দেড় কিলোমিটার রাস্তা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। রাস্তা দুই পাশে দিয়ে পথচারীদের উঠা নামায় কষ্টকর হয়ে পরেছে। এতে করে মাঝেমধ্যেই পথচারীরা দুর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছে। রায়পুর ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রামের প্রায় ৪ হাজার মানুষের চলাচলের একমাত্র সহজ যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে পরিচিত ওই রাস্তাটি বেহালের কারণে তাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। গ্রামের বাসিন্দা মহিদুল ইসলাম জানান, বৃষ্টি হলে কাঁচা রাস্তায় কাদাপানি জমে থাকে। তখন ভ্যান ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলতে পারে না। অসুস্থ রোগী দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যেতে তাদের চরম ভোগান্তিতে পরতে হয়। ভাতুড়িয়া গ্রামের আর এক বাসিন্দা মুকুল হোসেন জানান, ৩০ বছর ধরে এ রাস্তা পাকা করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছেন জনপ্রতিনিধিরা এ গ্রামের বাসিন্দারা পাকা সড়কের অভাবে দুর্ভোগে আছে তাই সকলের দাবি রাস্তাটি যেনো পাকা করন করা হয়। এলাকার কৃষি কাজের জন্য বাস্তাটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। এলাকাবাসী দাবী, এলাকার জন্য গুরুত্বপূর্ণ একমাত্র সংযোগ রাস্তাটি পাকা করনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সুদৃষ্টি কামনা করেন তারা।

 

আপনার মতামত লিখুন :