রাজশাহীতে চুরি করতে গিয়ে জনতার হাতে ধরা জাহাজঘাটের পলাশ: গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ

মোঃ রমজান আলী:

 

রাজশাহী নগরীর খোজাপুরে একটি বাড়িতে চুরি করে পালানোর সময় মোবাইলসহ মাদকাশক্ত পলাশ চোরকে হাতেনাতে আটক করেছে বাড়ির মালিক মোঃ জামিল আক্তার ও তার পরিবারের লোকজন। গতকাল বুধবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে নগরীর মতিহার থানাধিন খোজাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় স্থানীয় উত্তেজিত জনতা পলাশ চোরকে কিল-ঘুষি মেরে জখম করে। পরে নগরীর মতিহার থানার এসআই সাহাবুল ও সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে জনতার কবল থেকে মাদকাশক্ত পলাশ চোরকে উদ্ধার করে। এ সময় তার কাছ থেকে জব্দ করে একটি টিপ চাকু ও চুরি করা একটি বাটন নোকিয়া-১৩০ জিএস মোবাইল। আটককৃত পলাশ রাজশাহী নগরীর মতিহার থানাধিন ধরমপুর জাহাজঘাট এলাকার মোঃ ইসমাইল হোসেনের ছেলে।
ভুক্তভোগীর মোঃ জামিল আক্তারের এজাহারের বরাত দিয়ে এসআই সাহাবুল জানায়, গত বুধবার (১৪ অক্টোবর) রাত সাড়ে ৩টার সময় খোজাপুর এলাকার মোঃ জামিল আক্তারের বসত বাড়ীতে চুরি করতে প্রবেশ করে পলাশ। সেই সময় প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে তার মা ও বোন ঘরের বাইরে বের হয়ে দেখে তাদের শয়ন কক্ষ থেকে বের হয়ে দেওয়াল টপকিয়ে পালানোর চেষ্টা করছে চোর পলাশ। এ সময় তাদের চিৎকারে বাদি ঘর থেকে বেরিয়ে প্রাচির উপর উঠার আগেই বাড়ির ভেতরেই চোরকে আটক করে। ওই সময় বাদিকে সে চাকু দ্বারা আঘাত করার উদ্যোগ নেয় চোর পলাশ। তখন পুরো বাড়ির লোকজনের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন উপস্থিত হয়ে তার প্যান্টের পকেটে থাকা চুরি যাওয়া বাটন নোকিয়া-১৩০ জিএস মোবাইল ফোনও একটি টিপ চাকুসহ তাকে আটক করে জনতা।
তিনি আরও বলেন, স্থানীয় উত্তেজিত জনতা ঘটনাস্থলে কিল-ঘুষি মারলে পলাশের শরীরে ছিলা-ফোলা জখম হয়। পরে তাকে পুলিশের সহায়তায় রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয় মেডিকেলে জরুরী বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করেন।
এ বিষয়ে পলাশের বিরুদ্ধে একটি চুরির মামলা হয়েছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলেও জানান এসআই সাহাবুল।

 

 

আপনার মতামত লিখুন :