রাজশাহী-ঢাকা চালু হলো ইউএস বাংলা ও নভোএয়ারের ফ্লাইট

রাজশাহী প্রতিনিধি

করোনা পরিস্থিতির কারণে গত ২৪ মার্চ রাজশাহীর শাহ মখদুম (রহঃ) বিমানবন্দরে সর্বশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করা হয়েছিল। এরপর করোনা পরিস্থিতির কারণে আর ফ্লাইট পরিচালনা করা হয়ে ওঠেনি। গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রাজশাহীর আকাশপথ আবারও খুলছে। সব কিছু ঠিক থাকলে রাজশাহীর আকাশ পথে আবারও পাখা মেলবে উড়োজাহাজ। এদিন দেশের অভ্যন্তরীন এই বিমানবন্দর থেকে ফ্লাইট পরিচালনা করবে বেসরকারি এয়ারলাইনস ‘ইউএস-বাংলা’ ও ‘নভোএয়ার। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ফ্লাইট পরিচালনার সকল প্রস্তুতি এরই মধ্যে শেষ করেছে শাহ মখদুম বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। এর আগে গত সোমবার বিকেলে রাজশাহীর শাহ মখদুম (রহঃ) বিমানবন্দর গিয়ে দেখা যায় প্রবেশ পথ থেকে রানওয়ে পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। বিমানবন্দর কম্পাউন্ডের প্রবেশ পথ থেকে শুরু করে বহিরাগমন পথ পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে গোল বৃত্ত আঁকা হয়েছে।

এছাড়া শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করে প্রতিটি চেয়ারে নির্দেশনার স্টিকার বসানো হয়েছে। যাত্রীদের বিমানবন্দরে প্রবেশের সময় বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধান, সেনিটাইজেশন ও শরীরের তাপমাত্রা নিরূপণসহ বিভিন্ন নির্দেশনার স্টিকার লাগানো হয়েছে প্রবেশমুখ ও অভ্যন্তরে। সর্বোচ্চ পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও করা হয়েছে পুরো বিমানবন্দর জুড়ে। ইউএস-বাংলার রাজশাহীর স্টেশন ম্যানেজার মোশারফ হোসেন জানান, মঙ্গলবার সকাল থেকে তাদের দু’টি উড়োজাহাজ চালু হবে। একটি সকাল ১০টায় ঢাকা থেকে ছেড়ে রাজশাহী পৌঁছাবে ১০টা ৫০ মিনিটে। সেটি রাজশাহী থেকে যাত্রী নিয়ে আবারও বেলা ১১টা ২০ মিনিটে ছেড়ে রাজধানী ঢাকায় পৌঁছাবে ১১টা ৫০ মিনিটে। তাদের দ্বিতীয় উড়োজাহাজটি দুপুর আড়াইটায় ঢাকা থেকে ছেড়ে রাজশাহী পৌঁছাবে বেলা ৩টা ২০ মিনিটে। পরে ৩টা ৫০ মিনিটে রাজশাহী থেকে ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছাবে ৪টা ৪০ মিনিটে।

করোনা পরিস্থিতিতে তাদের সিডিউলে কিছুটা সময়ের পরিবর্তন আনা হয়েছে বলেও জানান তিনি। এদিকে, গতকাল মঙ্গলবার থেকে চালু হয়েছে নভোএয়ারের দু’টি উড়োজাহাজও। নভোএয়ারের রাজশাহী স্টেশন ম্যানেজার আতিকুর রহমান জানান, তাদের একটি উড়োজাহাজ সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকা থেকে ছেড়ে রাজশাহী আসবে বেলা ১১টা ১৫ মিনিটে। এটি দুপুর পৌঁনে ১২টায় আবারও রাজশাহী থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। তাদের দ্বিতীয় উড়োজাহাজটি বিকেল ৪টা ৩০ মিনিটে ঢাকা থেকে ছেড়ে রাজশাহী পৌঁছাবে বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটে। এর পর ৫টা ৪৫ মিনিটে আবারও রাজশাহী থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। তবে বাংলাদেশ বিমানের কোনো ফ্লাইট এখনই চালু হচ্ছে না। রাজশাহী স্টেশনের ব্যবস্থাপক হেলাল উদ্দীন জানান, গত ২৪ মার্চ তাদেরও ফ্লাইট চলাচল বন্ধ হয়। আগামী সেপ্টেম্বরের আগে চালু হওয়ার আপাতত কোনো সম্ভাবনা নেই। রাজশাহীর শাহ মখদুম বিমান বন্দরের ব্যবস্থাপক মো. সেতাফুর রহমান জানান, গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে এই বিমানবন্দরে নিয়মিত ফ্লাইট চলাচল শুরু হয়েছে। এ ব্যাপারে গত সোমবার বিকেলেই তিনি নির্দেশনা পেয়েছেন।

তবে অনেক আগেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিমানবন্দর থেকে ফ্লাইট চালুর জন্য সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। এরই মধ্যে পবা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে উপ-সহকারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা পর্যায়ের একজনকে বিমানবন্দরের অতিরিক্ত দায়িত্বে নিয়োজিত করা হয়েছে। এছাড়াও ভেতরে থাকা ওয়াশরুমসহ সবখানেই জীবাণুনাশক ছিটিয়ে সর্বোচ্চ পরিছন্নতা ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে। সর্বোপরি আকাশপথের যাত্রীদের সার্বিক স্বাস্থ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য শরীরের তাপমাত্রা নিরূপণ, হ্যান্ড স্যানিটাইজেশন ও মাস্ক পরিধানসহ অন্যান্য বিষয়গুলো পর্যবেক্ষণের পরেই ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে বলেও উল্লেখ করেন বিমানবন্দরের এই ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তা।
এদিকে, স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করে গতকাল মঙ্গলবার থেকে রাজশাহী বিমানবন্দরে ফ্লাইট চালুর অনুমতি দিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। গত রোববার (১৯ জুলাই) বেবিচক এ রুটে ফ্লাইট চালুর অনুমতি দেয়। এর আগে দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ায় গত ২৪ মার্চ সন্ধ্যায় ফ্লাইট চলাচল বন্ধ করে দেয় সরকার।

সোয়া দুই মাস পর ১লা জুন ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম, সিলেট ও সৈয়দপুর রুটে ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেয় বেবিচক। পর্যায়ক্রমে যশোর ও বরিশাল বিমানবন্দরেও ফ্লাইট চালুর অনুমতি দেওয়া হয়। কিন্তু রাজশাহী ও কক্সবাজারে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত না হওয়ায় ফ্লাইট চাল হচ্ছিল না। দীর্ঘ প্রায় চার মাস পর রাজশাহী-ঢাকা আকাশ পথে চালু হচ্ছে ইউএস বাংলা ও নভোএয়ারের ফ্লাইট। গতকাল মঙ্গলবার থেকে নিয়মিত চলাচল করবে উড়োজাহাজ।

আপনার মতামত লিখুন :