সংবাদ পত্রের কালো দিবস পালন উপলক্ষে কুষ্টিয়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সভা

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

১৬জুন সংবাদপত্রের কালো দিবস উপলক্ষে কুষ্টিয়া সাংবাদিক ইউনিয়নের উদ্যোগে র্ভাচুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১১টায় কুষ্টিয়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক বাচ্চুর সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম মুকুল, সহ-সভাপতি লুৎফর রহমান কুমার, যুগ্ম সম্পাদক এম এ জিহাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ হাসান সিপাই, কোষাধ্যক্ষ এনামুল হক, দপ্তর সম্পাদ আব্দুম মুনিব, প্রচার সম্পাদক নূরুন্নবী বাবু, নির্বাহী সদস্য হায়দার আলী কাউন্সিলর আব্দুল মান্নান প্রমুখ। বক্তারা বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৬ই জুন তৎকালীন সরকার মাত্র ৪টি সরকারী পত্রিকা রেখে অন্যান্য সকল পত্রিকার ডিক্লারেশন বাতিল করে সংবাদপত্রে কন্ঠ স্তব্ধ করে দেয়। বন্ধ হয়ে যায় সকল পত্রিকা। পেশাগত সাংবাদিকরা বেকার হয়ে পড়ে। তৎকালীন সরকার তার নানা অপকর্ম ঢাকতেই সে দিন সকল পত্রিকা বন্ধ করে দিয়েছিল।

পরে স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান নভেম্বরের সিপাহী-জনতার বিপ্লবে ক্ষমতাসীন হয়ে সংবিধানে এ দেশের কাঙ্খিত বহুদলীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রবর্তন করে বাকশাল সরকারের সকল প্রকার অগণতান্ত্রিক কালো ধারা বাতিল করেন এবং সংবাদপত্রের স্বাধীনতা পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেন। বর্তমান সরকার সংবাদপত্রের টুটি চেপে ধরে সংবাদ পত্রের স্বাধীনতা হরন করে চলেছে। সত্য সংবাদ পরিবেশন করতে পারছেনা। সত্য সংবাদ প্রকাশ করা হলেই ওই পত্রিকা বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। দৈনিক আমার দেশ পত্রিকা, ইসলামিক টেলিভিশন,চ্যানেল ওয়ান, দিগন্ত টেলিভিশনসহ সারা দেশে অনেক পত্রিকা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এ সরকার গণতন্ত্রে বিশ্বাসী নয়। তারা কৌশলে এক দলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করতে যাচ্ছে। সাগর-রুনি হত্যার বিচার আজও সাংবাদিকরা পায়নি। এ সরকারের শাসনামলে কোন সাংবাদিক হত্যার বিচার পাচ্ছিনা। সকল বিচার অন্ধকারে নিমজ্জিত। তাই অবিলম্বে সকল বন্ধ মিডিয়া খুলে দিয়ে সংবাদ পত্রের স্বাধীনতা ফিরিয়ে দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানানো হয়। বক্তারা বর্তমান বিশ্বে মহামারী করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত সাংবাদিকসহ নিহত ব্যাক্তিদের কারীদের রুহের মাগফিরাত কামনা করা হয়। এবং অসুস্থ সাংবাদিকদেও সুস্থতা কামনা করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :