সিরাজগঞ্জ জেলায় পানিবন্দি প্রায় ৩ লাখ ৩৮ হাজার মানুষ

রেজাউল করিম খান,সিরাজগঞ্জ

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল ও ভারি বর্ষনে সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ৬৯ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে জেলার ৬টি উপজেলার ৩৬টি ইউনিয়নের প্রায় ৩ লাখ ৩৮ হাজার ৪৫৫ জন মানুষ বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। যমুনার পানি বিপদসীমার উপরে থাকায় নদীর তীরবর্তী অঞ্চলের রাস্তা ঘাট, ব্রীজ,কালভার্ট, ঘর বাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। পানিবন্দি এলাকার অসংখ্য মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ, উচুঁ স্থান ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিয়েছে। জেলা ও উপজেলার সাথে চরাঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি শুরু হয়েছে নদী ভাঙ্গন। খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন বানভাসি মানুষ। সিরাজগঞ্জ জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম বলেন, বন্যায় জেলার কাজীপুরে ৯টি ইউনিয়ন, সদরে ৮টি, বেলকুচিতে ৫টি, উল্লাপাড়ায় ২টি, শাহজাদপুরে ৪টি ও চৌহালী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ৭৮ হাজার ৪৫৭টি পরিবারের ৩ লাখ ৩৮ হাজার ৪৫৫ জন মানুষ বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। এছাড়া ৬৩৩টি ঘরবাড়ি সম্প‚র্ণ এবং ৫ হাজার ৮০৫ টি ঘরবাড়ি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যা কবলিত মানুষের জন্য ৪শ মেট্রিক টন (জিআর) চাল বরাদ্দ পাওয়া গেছে। ইতিমধ্যে ১৪২ মেট্রিক টন চাল বিতরন করা হয়েছে। বর্তমানে মজুদ আছে ২৫৮ মেট্রিক টন চাল। শিশু খাদ্য ও গো খাদ্যের জন্য ৪ লাখ টাকা বিতরন করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :