সিরাজদিখানে হাউজিং প্রকল্প দখল ও সাইনবোর্ড লাগানো নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় ৩ পুলিশ আহত মু

মুন্সীগঞ্জের প্রতিনিধি

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানের বালুচর ইউনিয়নে সুমনা হাউজিং ও দক্ষিণা গ্রীন সিটি হাউজিং প্রকল্প দখল ও সাইনবোর্ড লাগানো নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশের এক এএসআইসহ ২ কনষ্টবল আহত হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ১৫ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করেছে। এনিয়ে স্থানীয় কয়কটি এলাকার জনগণের মাঝে রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষের আশঙ্কা করা হচ্ছে। উপজেলার বালুচর ইউনিয়নের চান্দের চর খাসকাদি এলাকায় শনিবার (২৭ জুন) রাত থেকেই কয়েক শতাধিক লোকজন দেশীয় অস্ত্র টেঁটা বল্লম ও রামদা নিয়ে একে অন্যর ওপর ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার চালায়। এতে কোন হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও দক্ষিণা গ্রীন সিটির লোকজন সুমনা হাউজিং এর সাইনবোর্ড ভাঙচুর করে। সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে সিরাজদিখান থানা পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

রবিবার (২৮ জুন) ভোর রাত থেকে দুটি হাউজিং গ্রুপে বিভিন্ন এলাকা হতে ভাড়া করা লোকজন জড়ো করে দখল-পাল্টা দখলের চেষ্টা করলে পুলিশ সকাল ৭টার দিকে তাদের ছত্রভঙ্গ করতে ও আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠি চার্জ করে। এসময় পুলিশের উপর দখলকারীরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে সিরাজদিখান থানার এএসআই দিলিপ কুমারসহ ২ কনেস্টবল আহত হয়। পরে পুলিশ দখলকারীদের উপর ১৫ রাউন্ড শর্ট গানের গুলি বর্ষণ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এলাকায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে সহস্রাধিক দেশীয় অস্ত্র টেঁটা বল্লম উদ্ধার করে এ রিপোর্ট করার সময় পযন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, বিগত কয়েক মাস যাবত বালুচর ইউনিয়নের খাসকাদি চান্দের চর এলাকায় অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা হাউজিং প্রকল্প সুমনা হাউজিং ও দক্ষিণা গ্রীন সিটির মধ্যে জায়গা দখল ও সাইনবোর্ড লাগানো নিয়ে উভয়পক্ষের মাঝে উত্তেজনা চলছিলো। সেই উত্তেজনা শেষ পর্যন্ত গড়িয়েছে টেঁটা বল্লম যুদ্ধে।

জানা যায়, গত ২১ শে ফেব্রুয়ারী শুক্রবার ভোর সকালে সুমনা হাউজিং প্রকল্পের শীর্ষস্থানীয় নেত্রীবৃদ সহ বহিরাগত ৩/৪’শ মাস্তান ভাড়া করে প্রকাশ্যে দেশীয় টেঁটা লাঠিসোঁটা নিয়ে দক্ষিণা গ্রীন সিটির এর সমস্ত সাইনবোর্ড ভেঙে নিয়ে যায় এবং দক্ষিণা গ্রীন সিটির এর সাইনবোর্ডের জায়গায় সুমনা হাউজিং’র সাইনবোর্ড লাগিয়ে দেয়। এখন আবার সুমনা হাউজিং এর সাইনবালোর্ড ভেঙে নিজেদের স্থান পূর্ণদখল নিচ্ছে দক্ষিণা গ্রীন সিটি। এই নিয়ে এখন দুটি হাউজিং প্রকল্পের লোকজনের মাঝে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে উত্তেজনা চলছে। যে কোন সময় রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষের আশঙ্কা হরা হচ্ছে। সিরাজদিখান থানার ওসি ফরিদ উদ্দিন জানান, দুটি হাউজিং প্রকল্পের লোকজনের মধ্যে একটি জায়গা দখল পাল্টা দখল নিয়ে সংঘর্ষের জন্য জড়ো হলে পুলিশ আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তাদের উপর লাঠি চার্জ করে। এসময় জনতা ইট পাটকেল নিক্ষেপ করলে একজন এএসআইসহ ২ কণেস্টবল আহত হয়। পরে পুলিশ ১৫ রাউন্ড শর্ট গানের গুলি বর্ষণ করে জনতাকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। পুলিশ ঐ এলাকায় অভিযান চালাচ্ছে আইনশৃখলা ভঙ্গকারীদের গ্রেপ্তারের জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে।

 

আপনার মতামত লিখুন :