স্বাস্থ্যবিধি মেনে জমে উঠেছে চট্টগ্রামের সল্টগোলা রেল ক্রসিং কুরবানীর পশুর হাট

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

কুরবানীর ঈদকে সামনে রেখে চট্টগ্রাম বন্দরনগরীর সল্টগোলা রেল ক্রসিং কুরবানীর পশুর হাটে গত দু’দিন ক্রেতা ও দর্শনার্থীর ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। যদিও এখন পর্যন্ত বাজার আয়োজকদের প্রত্যাশা অনুযায়ী পশু বিক্রি না হলেও সবাই আশাবাদি ঈদের তিনদিন আগ থেকে কুরবানীর পশুর বাজারে উপড়ে পড়া ক্রেতাদের ভিড় থাকবে। বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষার জন্য সল্টগোলা রেল ক্রসিং বন্দর মাঠ এ পশুর হাট বাজারে নিয়মিত ছিটানো হচ্ছে জীবাণুনাশক স্প্রে, ক্রেতাদের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছে মাস্ক। বাজারটিতে এ পর্যন্ত দু’শতাধিক গরু বিভিন্ন জেলা থেকে এসেছে। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন সূত্রে জানা যায়, নগরীর ৩টি স্থায়ীসহ ৭টি পশুর হাতে গত বৃস্পতিবার থেকে পশু বিকিকিনি শুরু হয়েছে, স্থায়ী হাটগুলো হচ্ছে, সাগরিকা পশুর বাজার, বিবির হাট গরুর হাট ও পোস্তারপাড় ছাগলের বাজার, অস্থায়ী চারটি বাজার হচ্ছে: কমল মহাজন হাট পশুর বাজার, সল্টগোলা গরুর বাজার ও ৪১টি নং ওয়ার্ডস্থ বাটারফ্লাই পার্কের দক্ষিণে টিকে গ্রæপের খালি মাঠ ও কর্ণফুলী পশূর বাজার।

এদিকে গতকাল সল্টগোলা রেল ক্রসিং ও বিবির হাট গরুর বাজার ঘুরে দেখা যায় অধিকাংশ ক্রেতাদের মূখে মাস্ক রয়েছে। বাজার কমিটির পক্ষ থেকে বাজারে সার্বক্ষণিক প্রবেশ মূখে ব্যবস্থা রয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও জীবাণুনাশক স্প্রে এবং সচেতনতার জন্য সার্বক্ষণিক ইজারাদারের পক্ষ থেকে বিশেষ সতর্কীকরণ প্রচার-প্রচারনা অব্যাহত রয়েছে। এবারের সল্টগোলা রেল ক্রসিং পশুর বাজারে যে সকল জেলা গুলো থেকে গরু এসেছে কুষ্টিয়া, কুমার খালি, আলম ডাঙ্গা, ভেরামাড়া, নাটোর, ঝিনাইদহ, লাটিমা, যশোর, মাগুরা, চাপাইনবাবগঞ্জ, নাচল, গোমস্তপুর, রাজশাহী, নওগাঁ, জামালপুর, ফরিদপুর, নগর কান্তা থানা, মেহেরপুর, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, চুয়াডাঙ্গা, টাঙ্গাইল ও কুমিল্লা। বাজারটিতে সর্বস্থ ১৫ লাখ থেকে ৫০ হাজার মূল্যে গরু রয়েছে। সল্টগোলা রেল ক্রসিং পশুর বাজারটিতে রয়েছে ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ।

পদ্মা-মেঘনা-যমুনা এ তিনটি নামে নামকরণ করা হয়েছে। সল্টগোলা রেল ক্রসিং বাজার কমিটির পক্ষ থেকে আবু সালেহ্ জুয়েল বলেন, আমরা ঐতিহ্যবাহী এ বাজারটির সুনাম অক্ষুন্ন রাখার জন্য প্রতি বছরের ন্যায় এবারো ক্রেতা সাধারনের সেবা প্রদানে আন্তরিকভাবে সচেষ্ট। বাজার কমিটির পক্ষ থেকে ফজলুল সরকার ও ফরিদুল আলম আরো জানান, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণরোধে এবারের কুরবানীর পশুর হাটে ক্রেতাদের নিরাপত্তার জন্য আমরা বাজারগুলোকে সার্বক্ষণিক সিসি ক্যামেরা দ্বারা মনিটরিং এর ব্যবস্থা রেখেছে এবং পাশাপাশি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সার্বক্ষণিক উপস্থিতিও বিদ্যমান। আমরা আশা করি বাজারটিতে বিভিন্ন প্রজাতির পশু বাজারটিতে এসেছে ক্রেতারা তাদের পছন্দ মোতাবেক পশু ক্রয় করতে পারবেন।

আপনার মতামত লিখুন :