স্বাস্থ্য বিধি না মেনেই ভান্ডারিয়ায় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট

তরিকুল ইসলাম,ভান্ডারিয়া,পিরোজপুর

পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া দক্ষিনাঞ্চলের শিয়ালকাঠী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে ঐতিহ্যবাহী কোরবানির পশুরহাট শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার গরু-ছাগলের দাম অনেক কম। তবে পুলিশের টহল কার্যক্রম চল্লেও কোন হাটেই মানা হচ্ছে না করোনাকালীন স্বাস্থ্য বিধি। উপজেলার নদমূলা শিয়ালকাঠী ইউনিয়নে শিয়ালকাঠী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে ও ইকড়ি বাজারে আসন্ন ঈদুল আযহা’কে সামনে রেখে ব্যাপক পশুর সমাগম ঘটেছে। তবে ক্রেতার উপস্থিতি কম রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বাজার পরিদর্শনে গিয়ে দেখা গেছে, গেল বছরের তুলনায় এবার পশুর দাম তুলনামুলক অনেকটা কম। গড়ে ২৫ হাজার থেকে ১লাখ টাকার মধ্যে মিলছে ভালো মানের গরু। তবে উপজেলায় করোনা সংক্রমণের হার অতিমাত্রায় বৃদ্ধি পেলেও কোন হাটেই মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি। জটলা পাকিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতারা কেনাকাটা করছে।

যা থেকে করোনা সংক্রমণ আরো বৃদ্ধির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। বিগত বছরের তুলনায় এ হাটে পশুর দাম কম রয়েছে বলে দাবী ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদেরও। পশু ব্যবসায়ী স্থাণীয় মনির হোসেন কাজী জানান, এ বছর ক্রেতা বিক্রেতা করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে আতঙ্কে বাজারে কম আসছে। সেই সাথে অর্থনৈতিক সংকটও দেখা দিয়েছে । তারপরও এ প্রতিকুলতার মধ্যেও পশুর সংখ্যা বেড়েই চলেছে এ হাটে। এছাড়া পশুর দাম তুলনা মূলক কম থকার কারনে দেশী খামারীরা দুশ্চিন্তায় পড়েছে।

সপ্তাহে শনিবার ও মঙ্গলবার নিয়মিত হাট বসলেও এখন থেকে ঈদুল আজাহার দিন পর্যন্ত এ হাটে সার্বক্ষনিক পশু ক্রয় বিক্রয় চলবে বলে হাট কতৃপক্ষ জানিয়েছেন। ক্রেতা প্রভাষক বশির উদ্দিন জানান, কোরবানির হাটে গরু বিক্রি করে লাভবান হবে বলে খামারিরা সারাবছর পশু পালন করে থাকে। কিন্তু এবার করোনার কারণে ক্রেতা ও বেপারীর উপস্থিতি তুলনামূলক কম হওয়ায় খামারিরা লোকসানের পড়তে পারে। অপর দিকে পশুহাটে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় করোনা আক্রান্তের হার বৃদ্ধি পাবে বলে সচেতন মহল মনে করছে।

আপনার মতামত লিখুন :