১৫ বছর ধরে ভক্ষিা করছনে জনপ্রয়ি শক্ষিক

ঠাকুরগাঁও প্রতনিধিি

ছলিনে মানুষ গড়ার কারগির। প্রয়ি ছলিনে সবার। তার আলোয় আলোকতি বহু শক্ষর্িাথীর জীবন। এদরে অনকেইে এখন চাকরি করনে, কউে হয়ছেনে শক্ষিক। অথচ এখন ভক্ষিা করনে তাদরে প্রয়ি শক্ষিক। বলছলিাম ঠাকুরগাঁও সদর উপজলোর খড়বিাড়ী উচ্চ বদ্যিালয়রে সাবকে সহকারী শক্ষিক জয়নুল আবদেনিরে কথা। আকচা ইউনয়িনরে বুড়রিবাঁধ এলাকায় পানি উন্নয়ন র্বোডরে পরত্যিক্ত ঘরে থাকছনে তনি।ি একসময়রে আলোচতি এই শক্ষিক এখন মানসকি ভারসাম্যহীন। ১৫ বছর ধরে ভক্ষিা করে জীবন চলছে তার।
একসময় যখোনে শক্ষর্িাথীদরে প্রাইভটে পড়াতনে আজ সটেি তার আশ্রয়স্থল। নইে সংসার, নইে খাবাররে ব্যবস্থা। ভক্ষিা করে যা পান তাই খয়েে বঁেছে আছনে এই মানুষ গড়ার কারগির। স্থানীয় সূত্র জানায়, জয়নুল আবদেনিরে জরার্জীণ শরীর। র্দীঘদনি ধরে অসুস্থ তনি।ি খয়েে না খয়েে থাকতে থাকতে হাত-পা শুকয়িে গছেে তার। ঠকিমতো হাঁটতে পারনে না। কথা বলতে পারনে না। পুরো শরীরে ব্যথা। বার বার চষ্টো করওে তার সঙ্গে কথা বলা যায়ন।ি স্থানীয়দরে সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ১৯৭৫ সালে জয়নুল আবদেনি সদর উপজলোর খড়বিাড়ী উচ্চ বদ্যিালয়ে সহকারী শক্ষিক হসিবেে যোগ দনে। বদ্যিালয়ে ইংরজেি পড়াতনে তনি।ি অল্প সময়রে মধ্যে ইংরজেরি ভালো শক্ষিক হসিবেে সবার প্রয়ি হন জয়নুল আবদেনি। ২০০০ সালে বদ্যিালয়রে প্রতষ্ঠিাতার সঙ্গে রাগারাগি হয় এই শক্ষিকরে। এরপর রাগ করে বদ্যিালয় থকেে চলে যান তনি।ি পরর্বতীতে তাকে চাকরচ্যিুত করা হয়। ২০০১ সালে বদ্যিালয়রে প্রতষ্ঠিাতা সভাপতি দবরি উদ্দনিরে বরিুদ্ধে মামলা করনে এই শক্ষিক। কন্তিু র্অথাভাবে মামলা চালাতে পারনেন।ি এরপর আর কোথাও চাকরি ননেন।ি এরই মধ্যে মানসকি ভারসাম্যহীন হয়ে পড়নে জয়নুল আবদেনি। ২০০৫ সাল থকেে ভক্ষিাবৃত্তি শুরু করনে তনি।ি বদ্যিালয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় প্রতদিনি দরেতিে বদ্যিালয়ে আসার কারণে দবরি উদ্দনিরে সঙ্গে রাগারাগি হয় জয়নুল আবদেনিরে। বদ্যিালয় সংশ্লষ্টিরা একাধকিবার বষিয়টি সমাধানরে চষ্টো করলওে তাদরে সঙ্গে বসতে রাজি হননি জয়নুল আবদেনি। এরপর তাকে চাকরচ্যিুত করা হয়। জয়নুল আবদেনিরে শক্ষর্িাথী মুসা বলনে, একসময় স্যাররে কাছে প্রাইভটে পড়তাম। ইংরজেি অনকে ভালো পড়াতনে। এখন স্যার যখোনে থাকছনে সখোনে আমাদরে প্রাইভটে পড়াতনে। হঠাৎ স্যারকে বদ্যিালয় থকেে বরে করে দওেয়া হয়। কছিুদনি পরই স্যাররে জীবন ওলটপালট হয়ে যায়। এখন স্যাররে অবস্থা দখেে কষ্ট লাগ।ে আমি সাধ্যমতো স্যারকে সহায়তার চষ্টো করছ।ি স্থানীয় বাসন্দিা, রঘুনাথ, জয়নাল ও কাসমেসহ কয়কেজন জানান, র্দীঘদনি ধরে বাঁধরে পাশে পরত্যিক্ত ঘরে থাকনে শক্ষিক জয়নুল আবদেনি। প্রায়ই রাস্তার ওপর বসে থাকনে। তনিি সবার পরচিতি শক্ষিক। তার কাছে পড়াশোনা করে অনকেইে মানুষ হয়ছেনে। অনকেে বড় চাকরি করনে, কউে হয়ছেনে শক্ষিক। অথচ জয়নুল স্যারকে দখোর কউে নইে। অসহায় দনি কাটছে তার। খড়বিাড়ী উচ্চ বদ্যিালয় প্রধান শক্ষিক সাবরিুল ইসলাম বলনে, জয়নুল আবদেনি স্যার সঠকি সময়ে বদ্যিালয়ে আসতনে না। একদনি দড়েটার দকিে বদ্যিালয়ে আসনে। তখন বদ্যিালয়রে প্রতষ্ঠিাতা দবরি উদ্দনি দরেি করে আসার কারণ জানতে চাইলে জয়নুল আবদেনি স্যার রগেে যান। একর্পযায়ে হাতাহাতি হয়। পরে জয়নুল আবদেনি চাকরি ছড়েে দনে। এরপর তনিি মামলা করনে। মামলা চলা অবস্থায় দবরি উদ্দনি মারা যান। পরে মামলা খারজি হয়ে যায়। আমরা অনকেবার জয়নুল স্যারকে বোঝানোর চষ্টো করছে।ি বদ্যিালয়ে শক্ষিকতা করতে বলছে।ি কন্তিু তনিি আর শক্ষিকতা করনেন।ি প্রধান শক্ষিক সাবরিুল ইসলাম আরও বলনে, এরই মধ্যে অসুস্থ হন জয়নুল আবদেনি। অসুস্থ হওয়ার খবর পয়েে তাকে অনকেবার দখেতে গছে।ি তাকে অনকেবার সহায়তা দওেয়ার চষ্টো করছে।ি কন্তিু যখনই আমি তাকে দখেতে গছেি তখনই তনিি অভমিানে আড়ালে চলে গছেনে। ঠাকুরগাঁও সদর উপজলো নর্বিাহী র্কমর্কতা (ইউএনও) আব্দুল্লাহ আল মামুন বলনে, জয়নুল আবদেনি মাস্টারকে বয়স্ক ভাতা দওেয়ার জন্য স্থানীয় চয়োরম্যানকে নর্দিশে দওেয়া হয়ছে।ে একই সঙ্গে গৃহহীনদরে জন্য সরকার যে ঘর দচ্ছি,ে ওই শক্ষিকরে জন্য একটি সরকারি ঘররে ব্যবস্থা করা হব।ে উপজলো প্রশাসনরে পক্ষ থকেে তার চকিৎিসায় সহায়তা দওেয়া হব।ে

 

আপনার মতামত লিখুন :