মাড়েলগঞ্জের জিউধরায় ৯টি মন্ডপে বিজয় দশমীতে উৎসবে মাতোয়ারা

বাগেরহাট প্রতিনিধি
বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জের জিউধরায় শারদীয় দুর্গোৎসবের শেষ দিনে বিজয় দশমীতে উৎসবে মাতোয়ারা ভক্তবৃন্দ। মন্ডপগুলোতে ঢাক ঢোল বাদ্যযন্ত্রে মুখরিত পূজারীদের উলধধনী। চলছে কবিগান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান যাত্র পালা, রামায়ন পাঠসহ নানাবিধ ধর্মীয় অনুষ্ঠান। সরেজমিনে মঙ্গলবার ইউনিয়নটিতে ঘুরে দেখা গেছে, শারদীয় দূর্গা পূজার শেষ দিনে ৯টি মন্ডপে এবারে পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ মন্ডপগুলো হলো বাইনতলা, বটতলাম পাজাখোলা সার্বজনীন দূর্গা মন্ডপ, ডেউয়াতলা বাজার সার্বজনীন দূর্গা মন্ডপ, ডুমুরিয়া সার্বজনীন দূর্গা মন্ডপ, পঞ্চগ্রাম মম্মিলিত সেবাশ্রম সার্বজনীন দূর্গা মন্ডপ, লক্ষিখালী সাধুর বাজার সার্বজনীন দূর্গা মন্ডপ, বাইনতলা জজ বাড়ি পাথুরিয়া সার্বজনীন দূর্গা মন্ডপ, পাথুরিয়া শিকদারবাড়ি সার্বজনীন দূর্গামাতা মন্দির, পঞ্চগ্রাম সম্মিলিত শ্রী শ্রী হরিচাদ মন্দির ও দূর্গা পূজা মন্দির ও ৯৮নং কালিবাড়ি পাথুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পূজা মন্ডপ।

মন্ডপগুলোতে ষষ্ঠী পূজা থেকেই সাজানো হয়েছে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজনে। বিজয় দশমীতে প্রতিটি মন্ডপে ধর্ম বর্ণের সকল শ্রেনী পেশার মানুষ এক কাতারে অনুষ্ঠান শ্রবন করছেন। পূজারিদের উপচে পড়া ভীর দেখা গেছে। এ সর্ম্পকে লক্ষিখালী শ্রী শ্রী গোপালচাঁদ সেবাশ্রমের বর্তমান গদিনশিন মতুয়াচার্য্য শ্রী শ্রী সাগর সাধু ঠাকুর বলেন, প্রতিবছরের ন্যায় এবারেও জিউধরা ইউনিয়নে ৯টি মন্ডপে উৎসব মুখর পরিবেশে শারদীয় দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আইন শৃংখলা রক্ষার্থে সার্বক্ষনিক দায়িত্বে ছিলেন পুলিশ ও আনসার বাহিনীর টিম। এখানে সকল ধর্মের মানুষ ধর্মীয় উৎসবে একে অপরের পরিপূরক হয়ে উৎসব পালন করেন।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বাদশা বলেন, শারদীয় উৎসব হিন্দু সম্প্রদয় হলেও এ ইউনিয়নের সকল সম্প্রদয়ের মানুষ একত্রিত হয়ে উৎসব পালন করেন। মন্দিরগুলোতে কোন ধরনের উৎসব পালনে বাঁধার প্রশ্নই উঠেনা। তিনি নিজেও প্রতিটি মন্ডপ ঘুরে দেখে স্থানীয় লোকজনের কাছে খোঁজ খবর নিয়েছেন। একটি মহল ভূল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছে।

আপনার মতামত লিখুন :